২৫, নভেম্বর, ২০২০, বুধবার | | ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

দেবিদ্বারে নিজ ঘরে পুঁতে রাখা হলো আপন ছোট ভাইয়ের লাশ

আপডেট: September 8, 2020

দেবিদ্বারে নিজ ঘরে পুঁতে রাখা হলো আপন ছোট ভাইয়ের লাশ

সুমন সরকার, নিজস্ব প্রতিবেদক:

কুমিল্লার দেবিদ্বারে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে হত্যার পর নিজ গৃহেই পুঁতে রাখা হলো সোহেল মিয়া নামে এক যুবকের লাশ। আপন ভাই এবং ভাবি মিলে হত্যার পর লাশ বস্তাবন্দি করে ঘরের ভেতরেই পুঁতে রাখে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ ভিংলাবাড়ী গ্রাম থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সোহেল (৩২) ওই গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে। ঘটনার পর থেকে নিহতের ভাই সন্দেহভাজন ঘাতক ইব্রাহিম পালাতক রয়েছে। পুলিশ ঘাতক ইব্রাহিমের স্ত্রী রোজিনা বেগমকে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, কিছুদিন আগে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে মৃত আবুল কাশেমের ছেলে ইব্রাহিম এবং সোহেল মিয়ার মাঝে মারামারি হয়। ইব্রাহিম তার স্ত্রী রুজিনাকে নিয়ে যুবক সোহেলকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে। এতে কিছুক্ষণের মধ্যেই সোহেল মারা যান। ঘটনা ধামাচাপা দিতে ইব্রাহিম আপন ভাইয়ের লাশ বস্তাবন্দী করে তার নিজ গৃহেই পুঁতে রাখেন। পরে বেশ কয়েকদিন যাবত তাকে খুঁজে না পেয়ে নিহতের ভাগিনা মাইনুদ্দিন সোহেল কোথায় আছে জানতে চান। এ সময় ঘাতক ইব্রাহিম জানান সোহেলকে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে দেওয়া হয়েছে। স্বজনরা কোন নিরাময় কেন্দ্রে তাকে দেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে ইব্রাহিম তাদের প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে নিজেই আত্মগোপন করেন। আশপাশের লোকজন ইব্রাহিমের স্ত্রী রোজিনা বেগমকে চাপ দিলে নিজ গৃহেই সোহেলের লাশ পুঁতে রাখা হয়েছে বলে জানান। খবর পেয়ে দেবিদ্বার থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এ বিষয়ে দেবিদ্বার থানার পরিদর্শক মেজবাহ উদ্দিন জানান, নিজ গৃহে এক যুবকের লাশ পুঁতে রাখা হয়েছে স্থানীয়দের দেওয়া এমন তথ্যের ভিত্তিতে সেখানে আমরা অভিযান চালাই, এসময় নিহতের ভাই ঘাতক ইব্রাহিমের স্ত্রীর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে নিখোঁজ সোহেল মিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়, এ ঘটনায় সন্দেহভাজন ভাই ইব্রাহিম পলাতক থাকলেও তার স্ত্রীকে আটক করা হয়।